ছাত্রী উত্যক্তের প্রতিবাদ কারী অধ্যক্ষকে ছুরিকাঘাত

প্রকাশিতঃ 7:11 pm | July 17, 2018


হবিগঞ্জ প্রতিনিধি

ছাত্রী উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় হবিগঞ্জে কলেজের অধ্যক্ষসহ তিনজনকে ছুরিকাঘাতে আহত করেছে বখাটেরা। গুরুতর আহত অবস্থায় অধ্যক্ষ গোলাম হোসেন ও দপ্তরি ফয়জুর রহমানকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে নবীগঞ্জ ডিগ্রী কলেজে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মুন্না নামের ওই বখাটের এক সহযোগীকে আটক করেছে পুলিশ।

অধ্যক্ষ এর উপর বখাটেদের হামলার প্রতিবাদে কলেজের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা মিলে নবীগঞ্জ শহরে এক বিক্ষোভ মিছিল করে এবং শহরের প্রধান সড়ক অবরোধ করে রাখে। হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন তারা।

কলেজের শিক্ষার্থীরা জানায়, কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের এক ছাত্রীকে প্রায়ই উত্যক্ত করতো বখাটে দিপন আহমেদ মুন্না। সোমবার কলেজ ক্যাম্পাসে ঢুকে ওই ছাত্রীর সাথে জোর করে সেলফি তোলে মুন্না। এ ঘটনায় মুন্নার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেন কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম হোসেন।

এরই জের ধরে মঙ্গলবার দুপুরে অধ্যক্ষের ওপর হামলা চালায় মুন্না ও তার সহযোগীরা। এতে গুরুতর আহত হন অধ্যক্ষ গোলাম হোসেন, ফয়জুর রহমান ও ভুক্তভোগী ছাত্রী।

  • পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অধ্যক্ষ গোলাম হোসেন ও কলেজ দপ্তরী ফয়জুর রহমানকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। ওই কলেজ ছাত্রীকে স্থানীয় ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

অপরদিকে হামলার পরপরই হামলাকারী দিপন আহমেদ মুন্না মোটর সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও তার সহযোগী হুমায়ুন কবির নামের এক বখাটেকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে স্থানীয় জনতা।

এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আতাউর রহমান জানান, ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে এক জনকে আটক করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়াও ঘটনার সাথে জড়িত অন্যান্যদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।